কালারস্ অফ রিদম : মার্জিয়া নৃত্য সন্ধ্যা

রওশন ঝুনু, ঢাকা : আগামী ৩০ জুলাই ২০২২ শনিবার সন্ধ্যা ৭:৩০ মিনিটে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর চিত্রশালা অডিটরিয়ামে ”কালারস্ অফ রিদম” মার্জিয়া নৃত্য সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হবে। নৃত্যশিল্পী, কোরিওগ্রাফার প্রশিক্ষক ও বাংলাদেশ একাডেমী অফ ফাইন আর্টস বাফা, যুক্তরাজ্যের নির্বাহী পরিচালক মার্জিয়া স্মৃতি একক নৃত্য পরিবেশন করবেন। অনুষ্ঠানটির পরিকল্পনা, পরিচালনা এবং কোরিওগ্রাফীর দায়িত্বেও থাকছেন মার্জিয়া স্মৃতি নিজে।

সোমবার ২৫ জুলাই ২০২২ দুপুর ১২টায় জাতীয় প্রেস ক্লাব এর দ্বিতীয় তলায় তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া (ভিআইপি) মিলনায়তনে নাগরিক নাট্যাঙ্গন অনসাম্বল আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, নাগরিক নাট্যাঙ্গন অনসাম্বল এর সাধারণ সম্পাদক ড. চঞ্চল সৈকত। এ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন, সৃষ্টি কালচারাল সেন্টারের পরিচালক আনিসুল ইসলাম হিরো, কবি ও সাংবাদিক রওশন ঝুনু এবং যুক্তরাজ্য বাফা’র কো-ফাউন্ডার ও মার্জিয়া স্মৃতির মা ফরিদা ইয়াসমিন এবং অন্যান্য অতিথিবৃন্দ।

৩০ জুলাই মার্জিয়া শাস্ত্রীয় নৃত্য, রাবীন্দ্রিক নৃত্য, লোকনৃত্য এবং দেশাত্মবোধক নৃত্য পরিবেশন করবেন। এ ছাড়াও বিভিন্ন দলীয় পরিবেশনায় থাকবে, সৃষ্টি কালচারাল সেন্টার এর নৃত্যশিল্পীবৃন্দ।

প্রবাসে বেড়ে ওঠা মার্জিয়া বাংলা সংস্কৃতিকে তার রক্তে ও চেতনায় ধারণ ও লালন করেন প্রতিনিয়ত। কত্থক, ভরত নাট্যম, ওড়িশি এবং রাবীন্দ্রিক নৃত্যে পারদর্শী মার্জিয়া স্মৃতি, বাংলা সংস্কৃতির ধারক-বাহক হিসেবে গভীর নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন আমেরিকার মূল মঞ্চে।

সংবাদ সম্মেলনে আপন অনিুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে সনামধন্য এই নৃত্যশিল্পী মার্জিয়া আবেগাপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙে পরেন। এ সময় কানায় কানায় পূর্ণ মিলনায়তনে নিশ্চুপ স্তব্ধ নিরবতা নেমে আসে। অনেক চেষ্টায় নিজেকে নিয়ন্ত্রণ ক’রে মার্জিয়া বলেন, এ আমার সুখের কান্না, আনন্দাশ্রু। দেশের মাটিতে একটি অনুষ্ঠান করবার স্বপ্ন দীর্ঘ দিনের। কারণ, ১৪ মাস বয়স থেকে আমার প্রবাস জীবন শুরু। তবু আমার জন্মভূমির জীবনবোধ তথা দক্ষিণ এশিয়া উপ-মহাদেশের শিল্প-সংস্কৃতিকে ধারণ ক’রে,এই আজকের আমাকে গ’ড়ে তুলতে অনেক কাঠ-খড় পোড়াতে হয়েছে। অবিশ্বাস্য ও অবর্ণনীয় কষ্টের পথ পারি দিয়ে আজ আমি প্রবাসে এবং স্বদেশে আমার স্বপ্ন পূরণের নিস্কণ্টক পথে হাঁটতে সক্ষম হয়েছি। এই আনন্দ বুঝিয়ে বলার ভাষা আমি হারিয়ে ফেলেছি। তিনি বলেন, দীর্ঘ ১৮ বছর আগে একবার শৈশবে বাংলাদেশে আসলেও এবারই প্রথম দেশ নিয়ে আমার আনন্দ বেদনা আর গর্ব-অহঙ্কারের স্বপ্নময় নৃত্যশৈলী উপস্থাপন করবো। এ আমার অন্যতম অন্যরমক অধরা আবেগ, এ যেনো ছায়ালোক থেকে নেমে আসছে মাতৃভূমি মর্ত্যলোকে। যা আমার দীর্ঘ তৃষ্ণার্ত মনকে তৃপ্ত করবে আর অভিজ্ঞতাকে আরো সমৃদ্ধ করবে ।

সবাইকে বিনা টিকিটে ৩০ জুলাই সন্ধ্যায় “কালার অফ রিদম” মার্জিয়া নৃত্য সন্ধ্যা  শিরোনামে বিশেষ নৃত্যানুষ্ঠানটি উপভোগের আমন্ত্রণ জানিয়ে মার্জিয়া বলেন, আমার নৃত্যানুষ্ঠানটি সফল করতে আপনাদের সার্বিক সহযোগিতা ও ভালোবাসা একান্ত কাম্য এবং দাবি।

যুক্তরাজ্য বাফা’র কো-ফাউন্ডার, ও মার্জিয়া স্মৃতির মা ফরিদা ইয়াসমিন, শৈশব থেকে মার্জিয়ার নৃত্যশিল্পী হিসেবে গড়ে উঠবার সম্ভাবনা, ইচ্ছা-আগ্রহ, চেষ্টা ও পরিশ্রম, তার সাথে অভিভাবক হিসেবে বন্ধুর মতো মা-বাবার অক্লান্ত পরিশ্রম ও সহযোগিতার কথা তুলে ধরেন। মার্জিয়া সম্পর্কে মা ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, আমেরিকান সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে জীবন যাপন ক’রে, দক্ষিণ এশিয়ান সাংস্কৃতিক ঘরানার নৃত্যচর্চার পথ চলাটি মোটেই সহজ ছিলো না। পাশাপাশি মার্জিয়া প্রবাসে থেকে তার নব নব সৃজনশীল নৃত্যশৈলীর মাধ্যমে বিশ্ববাসীর কাছে সগৌরবে বাংলাদেশকে তুলে ধরার উদাহরণও তুলে ধরেন তিনি। সবশেষে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের কাছে মার্জিয়ার কাজের প্রতি ভালোবাসা ও সহযোহিতা সরূপ বহুল প্রচারের বিনয়ী দাবী জানান ফরিদা ইয়াসমিন।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা ও মার্জিয়া স্মৃতির জীবন পরিচিতি পাঠ করেন নাগরিক নাট্যাঙ্গন অনসাম্বল এর সিনিয়র সদস্য হাফিজ আকাশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

SuperWebTricks Loading...
Headlines